For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.
সম্ভাবনার নাম স্টার্টআপ

সম্ভাবনার নাম স্টার্টআপ

আপনি কি নিজের ব্যবসা শুরু করতে চান?  ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠান গড়ে নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে চান?

 

“চাকরি করব না চাকরি দেব “এই ধারণার উপর ভিত্তি করে আমাদের দেশে স্টার্টআপ এর উৎপত্তি।বাংলাদেশের চাকরি বাজারে তীব্র প্রতিযোগিতার যুগে স্টার্টআপ এখন এক বিরাট ক্ষেত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে ।লাখো লাখো তরুণদের কর্মসংস্থানের ক্ষেত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে এখন স্টার্টআপ।সেইদিন আর বেশি দূরে নয় যখন স্টার্টআপ হয়ে উঠবে বাংলাদেশ এর সবচেয়ে বড়  কর্মক্ষেত্র।

 

কোন ধরণের ব্যক্তিবিশেষ কিংবা কোন ধরণের প্রতিষ্ঠান যেকোনো ধরণের পণ্যসমূহ নিয়ে ব্যবসা শুরু করার নামই হলো স্টার্টআপ। অর্থাৎ নির্দিষ্ট সংখ্যক পণ্য এবং মূলধন নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করার নামই হলো স্টার্টআপ। লাখো লাখো তরুণদের ভাগ্য বিনির্মান এর ক্ষেত্রে বিরাট কারিগর হয়ে দাঁড়িয়েছে এখন স্টার্টআপ। 

 

প্রতিবছর লাখো লাখো তরুণ বিশ্ববিদ্যালয়ের গন্ডি পেরিয়ে চাকরির বাজারে নেমে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হয়।কিন্তু চাকরির বাজারে তীব্র প্রতিযোগিতায় নিজেদের আশানুরূপ ফলাফল না পেয়ে অনেক তরুণই আত্নহত্যার মতো পথ বেছে নিয়ে নিজেদের শেষ করে দিচ্ছে।কিন্তু আমরা ভুলে যাই সমস্যা যেখানে আছে সেইখানে সমাধানও কিন্তু রয়েছে।তাই তরূনরা এখন চাকরির আশায় বসে না থেকে  নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন এর জন্য স্টার্টআপকে বেছে নিচ্ছে।

 

আপনি যদি স্টার্টআপ এ একদম নতুন হয়ে থাকেন এবং স্টার্টআপ শুরু করার কথা ভবে ভাবছেন  সেই ক্ষেত্রে  আপনাকে অবশ্যই কিছু জিনিস মাথায় রাখতে হবেঃ

 

১.বিজনেস আইডিয়াঃ

স্টার্টআপ শুরু করার  জন্য প্রথমে প্রয়োজন একটি পরিপূর্ণ এবং দীর্ঘমেয়াদি বিজনেস আইডিয়া।একটি পরিপূর্ণ বিজনেস আইডিয়া একটি সফল স্টার্টআপ এর পূর্বশর্ত।

 

২.মূলধনঃ

যেকোনো ধরণের ব্যবসার ক্ষেত্রে মূলধন খুব গুরুত্বপূর্ণ। মূলধনই আপনার ব্যবসার চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করে।

 

৩.কমিউকেশন স্কিলঃ

স্টার্টআপ শুরু করার ক্ষেত্রে কমিউনিকেশন বিল্ড আপ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।কমিউকেশন যত বেশি হবে তত বেশি মানুষ এর সাথে আপনার ব্যবসা এবং ব্যবসার পরিচিতি বৃদ্ধি পাবে।

 

৪.স্টার্টআপ স্কিলঃ

আপনি যদি স্টার্টআপ এ একদম নতুন হয়ে থাকেন  তাহলে আপনি স্টার্টআপ স্কিলগুলো বিল্ড আপ করতে পারেন। কোন না কোন সময় এই স্কিলগুলো আপনার কাজে লাগবে।

 

৫.ডিজিটাল মার্কেটিংঃ

 স্টার্টআপ ক্যারিয়ারকে বুস্টআপ করতে চাইলে ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিকল্প নেই।ডিজিটাল  মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসা এবং ব্যবসার পণ্যসমূহকে অধিক স্থানে পরিচিতি করে তুলতে পারবেন।

 

৬.সমস্যা সমাধানঃ

স্টার্টআপ কিন্তু মোটেও সহজ না।হঠাৎ করে বিভিন্ন সমস্যা এসে হাজির হতেই পারে তাই বিচলিত না হয়ে সেই সমস্যার সমাধান করাটা জরুরি। তাই স্টার্টআপ শুরু করতে চাইলে অবশ্যই   সমস্যা সমাধান করার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।

 

বেশ কিছু সময় পূর্বে বাংলাদেশে উদ্যোক্তা তৈরির উপর তেমন কোন ক্ষেত্র গড়ে না উঠলেও সময়ের সাথে সাথে মানুষের সেই ধারণা পাল্টেছে।এখন নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরির জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এ প্রতি বছর উদ্যোক্তা ফেয়ার এর আয়োজন করছে।সময়ের সাথে মানুষ এর ধারণা পরিবর্তন হচ্ছে।তাই নিজের মেধা এবং শ্রমকে যোগ্য স্থানে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে স্টার্টআপ এর বিকল্প নেই।

Comments (1)


  1. Supply Chain- Key Reason for Business Success – Interactive Cares

    […] Related:সম্ভাবনার নাম স্টার্টআপ […]

leave your comment