For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.
বাংলাদেশের জনপ্রিয় কিছু এডটেক স্টার্টআপ

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কিছু এডটেক স্টার্টআপ

বাংলাদেশে স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলেছে। আমরা যদি গত পাচ বছরের ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর দিকে লক্ষ্য করি তাহলে আমরা দেখতে পাবো যে, গত পাচ বছরে গড়ে প্রতি বছর ১৩.৫% হারে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে এবং একটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ৬৭% লোক এখন ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় এসেছে। এশিয়া-প্যাসিফিক এর অন্যান্য দেশ গুলোর তুলনায় বাংলাদেশ স্মার্টফোন ব্যবহারের তালিকায় পিছিয়ে থাকলে, বর্তমানে বাংলাদেশের মোবাইন ফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৪১% লোক স্মার্টফোন ব্যবহার করে থাকে।

ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের আধিক্য বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে এখন ডিজিটাল সেবার যুগ শুরু হয়েছে এবং এর মধ্যে শিক্ষাক্ষেত্র সবচেয়ে বেশি পরিমাণে ডিজিটালাইজেশন হয়েছে। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের ফলে সৃষ্ট প্যানডেমিক এই ডিজিটালাইজেশনকে ক্রমান্বয়ে ত্বরান্বিত করেছে যার ফলে বর্তমান বাংলাদেশে অনেক এডটেক স্টার্টআপ বেশ জনপ্রিয় হয়েছে।

Multitasking
Health

মাল্টিটাস্কিং – প্রয়োজনীয় অভ্যাস নাকি ক্ষতিকর অভ্যাস

বর্তমানে আমরা এমন এক দুনিয়ায় বসবাস করছি যে দুনিয়ায় আজকাল সবকিছুই নির্ভর করছে আপনি কত দক্ষভাবে, কত কম সময়ে আপনার হাতের কাজ শেষ করতে পারছেন।

Read More »
Revit 3D
Education

রেভিট থ্রিডি – বিল্ডিং ইনফরমেশন মডেলিং এর নব দিগন্ত

একটি সফল কনস্ট্রাকশন প্রজেক্ট এর জন্য প্রজেক্টের প্রত্যেক স্তরে আর্কিটেক্ট, ডিজাইনার এবং ইঞ্জিনিয়ার থাকা যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি একটি কন্সট্রাকশন প্রজেক্টের ক্ষেত্রে আধুনিক সব প্রযুক্তির বাস্তবায়ন

Read More »

এডটেক স্টার্টআপ কেন জনপ্রিয়?

এডটেক স্টার্টআপগুলি প্রসারিত হওয়ার সাথে সাথে শ্রেণীকক্ষগুলি বেশ কয়েকটি উপায়ে রূপান্তরিত হচ্ছে। এডটেকের রোবটগুলি শিক্ষার্থীদের বিনোদনমূলক ধরণের শিক্ষার মাধ্যমে জড়িত থাকা সহজ করে তোলে। বাচ্চাদের জন্য ডিজিটাল ক্লাসরুম, তারা স্কুলে হোক, বাসে হোক বা বাড়িতে, আইওটি গ্যাজেট দ্বারা ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। অটোমেশন এবং ব্লকচেইন প্রযুক্তি এমনকি প্রশিক্ষকদের পরীক্ষা গ্রেড করতে এবং শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টের জন্য তৈরী করতে সহায়তা করছে।

যেহেতু এডটেকের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে, সেহেতু ব্যক্তিগত ভাবে শেখার দক্ষতা বৃদ্ধি করার ক্ষমতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষার্থীরা সাধারনত বিভিন্ন উপায়ে শিখে থাকে, যার মধ্যে রয়েছে তাদের সমবয়সী এবং একই ক্লাসে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের এবং প্রশিক্ষকদের সাথে মিথস্ক্রিয়া করা, পাশাপাশি বিভিন্ন উপায়ে বিভিন্ন বিষয়ের প্রতি তাদের শেখার আগ্রহ প্রকাশ করা। এইক্ষেত্রে আমাদের মনে রাখতে হবে যে, শেখার গতি এবং পদ্ধতি সবার জন্য আলাদা।

শেখার উদ্দেশ্য এবং শিক্ষাগত অভিজ্ঞতাকে এডটেক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কাস্টমাইজ করা যেতে পারে, যা পরবর্তীতে শিক্ষা কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হতে উৎসাহিত করবে এবং তাদের প্রজন্ম বা জ্ঞানীয় ক্ষমতা নির্বিশেষে সমস্ত শিক্ষার্থীদের শেখার দক্ষতা উন্নত করতে সহায়তা করবে।

ট্রাডিশনাল শ্রেণীকক্ষ এবং শিক্ষা কার্যক্রমকে এডটেক দ্বারা রূপান্তরিত করা হচ্ছে। ক্লাসে শেখানো পাঠ্যগুলি এখন ভিডিও বক্তৃতা বা শেখার অ্যাপ্লিকেশনগুলির মাধ্যমে চাহিদা অনুযায়ী দেখা যেতে পারে যা শিক্ষার্থীদের ক্লাস চলাকালীন সময়ে গ্রুপ প্রকল্পগুলিতে সহযোগিতা করার অনুমতি দেয়। স্ব-শিক্ষা, সৃজনশীলতা এবং দলবদ্ধ কাজের অনুভূতি এই ধরণের শেখার কিছু সুবিধা যা পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে যোগ দিতে উৎসাহিত করে থাকে।

শিক্ষার্থীদের ক্ষমতা এবং তাদের শিক্ষা কার্যক্রমের উন্নয়নের সুযোগমূল্যায়ন করার চেষ্টার জন্য, শিক্ষকরা অফুরন্ত ঘন্টা ব্যয় করেন। এডটেক ব্যবহার করে এই সব পরিবর্তন করা যেতে পারে। শিক্ষার্থীদের ক্ষমতা এবং চাহিদা ক্রমাগত বিভিন্ন সরঞ্জাম, ডেটা প্ল্যাটফর্ম, এবং অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা মূল্যায়ন করা হয়, যা তারপরে শিক্ষকদের কাছে তথ্য প্রেরণ করে।

বাংলাদেশে জনপ্রিয় হওয়া কিছু এডটেক স্টার্টআপ

বাংলাদেশে এডটেক স্টার্টআপ গুলো সবেমাত্র কৈশোর প্রাপ্ত হয়েছে কিন্তু তবুও বাংলাদেশে বর্তমানে এডটেক স্টার্টআপ সমূহ জনপ্রিয় স্টার্টআপ এ রূপান্তরিত হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের বেশিরভাগ এডটেক স্টার্টআপ গুলো প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। কয়েকটি এডটেক স্টার্টআপ এই অবস্থা থেকে বের হয়ে এসে অন্যান্য শিক্ষা কার্যক্রম যেমন, ভর্তি পরীক্ষা প্রস্তুতি, বিশ্ববিদ্যালয় এর সাথে সম্পর্কিত শিক্ষা কার্যক্রম দেওয়ার চেষ্টা করছে। এর মধ্যে রবি-টেন মিনিট স্কুল, ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস, শিখো অন্যতম।

বর্তমানে বাংলাদেশে ১০৭ টি এডটেক স্টার্টআপ বিদ্যমান। এদের মধ্যে সেরা কয়েকটি এডটেক স্টার্টআপ বাছাই করা দুঃসাধ্য একটি কাজ। তবুও বর্তমান বাংলাদেশে চলমান কয়েকটি সেরা এডটেক স্টার্টআপ সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো,

রবি-টেন মিনিট স্কুল

আইবিএ স্নাতক আয়মান সাদিক ২০১৫ সালে ১০ মিনিটের স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন যা বাংলাদেশে এডটেক স্টার্টআপ জগতে অন্যতম পথিকৃৎ হিসেবে বিবেচিত হয় এবং বর্তমানে এটি বাংলাদেশের বৃহত্তম এডটেক স্টার্টআপ যা প্রাথমিক শিক্ষা থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি, বিভিন্ন ভাষা শিক্ষা এবং পার্সোনাল দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক বিভিন্ন কোর্স এবং বিষয়বস্তু প্রদান করে।

আইমান সাদিক ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে ইউটিউব চ্যানেল হিসেবে ১০ মিনিটের স্কুল শুরু করেন। আইমান লক্ষ্য করেছেন যে আইবিএ প্রবেশিকা পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের যে বিষয়গুলি পড়তে হয় তা বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা, স্যাট, জিআরই, জিএমএটি এবং চাকরির পরীক্ষার জন্যও উপযোগী। তাই তিনি এই বিষয়গুলি শেখানোর জন্য একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। শ্রোতাদের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া দুর্দান্ত ছিল, যা শেষ পর্যন্ত একটি নিবেদিত এডটেক স্টার্টআপ চালু করার ধারণার দিকে পরিচালিত করে।

এই অনুপ্রেরণা এবং বিভিন্ন স্তরের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অভূতপূর্ব প্রতিক্রিয়ার ফলশ্রুতিতে, ২০১৫ সালের ১৭ই মে, টেন মিনিট স্কুলের ওয়েবসাইট আনুষ্ঠানিকভাবে জন্মগ্রহণ করে। এর পরবর্তী গল্পটা অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমেরর একাধিক বিভাগের দ্রুত বৃদ্ধি এবং সম্প্রসারণের একটি গল্প। আজ, টেন মিনিট স্কুল ক্লাস ১-১২, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা, আইইএলটিএস, জিআরই, আন্তঃব্যক্তিগত দক্ষতা ইত্যাদি সহ বিভিন্ন কোর্স এবং শিক্ষা পণ্যের জন্য একটি স্থান। সংস্থাটি দেরিতে হলেও দক্ষতা বিকাশ এবং অন্যান্য বিভিন্ন বিষয়ে দেরিতে পেইড কোর্স চালু করেছে।

বহুব্রীহি

২০১৬ সালে বুয়েটের দুই প্রাক্তন ছাত্র ইয়ানুর ইসলাম পিয়াশ এবং গালিব হাসান খান প্রতিষ্ঠিত বহুব্রীহি বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় এডটেক স্টার্টআপ। ইয়ানুর ইসলাম পিয়াশের মতে, বাংলা ভাষায় উন্নত মানের অনলাইন কোর্সের অপ্রতুলতা, বিশেষ করে উন্নত প্রযুক্তিগত ও প্রকৌশল বিষয়ে তাদের একটি ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে উৎসাহিত করে যেখানে বিভিন্ন দক্ষতার উপর কোয়ালিটি কোর্সের বিষয়বস্তু বাংলায় থাকবে। আজ, বহুব্রীহি বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতা অর্জনের জন্য বিভিন্ন ধরণের কোর্স সরবরাহ করে।

২০২০ সালে, বহুব্রীহি তার ‘ক্যারিয়ার ট্র্যাক প্রোগ্রাম’ চালু করে যাতে তারা বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে প্রশিক্ষণ এবং সম্পূর্ণ দিকনির্দেশনা প্রদান করে অই ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ হতে সহায়তা করে। বহুব্রীহির লক্ষ্য হল তাদের শিক্ষার্থীদের পূর্ণ-সময়ের পরামর্শদাতা সহায়তা প্রদান এবং বিভিন্ন প্রশিক্ষকদের সাথে সরাসরি আলোচনা, গ্রুমিং সেশন, অংশীদার সংস্থাগুলির সাথে সম্ভাব্য ইন্টার্নশিপ প্লেসমেন্টগুলিতে চাকরি প্রাপ্তির জন্য পরামর্শ দেওয়া এবং স্বতন্ত্র অংশগ্রহণকারীদের দ্বারা করা প্রতিটি প্রকল্পের ব্যক্তিগত প্রতিক্রিয়া শিক্ষার্থীদেরকে সরবরাহ করা।

ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস

ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস

২০১৯ সালে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালস এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এর দুইজন শিক্ষার্থী যথাক্রমে রেয়ার আল সামির এবং জামিলা বুপাশা খুশবু প্রতিষ্ঠা করেন ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস নামের এই এডটেক স্টার্টআপ যা বাংলাদেশের প্রথম ক্লাউড এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ভিত্তিক এডটেক স্টার্টআপ এর স্বীকৃতি লাভ করে। ২০১৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস ক্রমবর্ধমান উন্নতি এবং অনন্যতা এর মাধ্যমে এডটেক স্টার্টআপ এর গ্রাহক দের মধ্যে জায়গা করে নিচ্ছে। ইন্টারেক্টিভ কেয়ারসের প্রধান লক্ষ্য হল সকল শিক্ষার্থীদেরকে আধুনিক শিক্ষা প্রদান করা যা প্রচলিত শিক্ষা সম্পর্কিত সকল ভয়ভীতি দূর করে শিক্ষাকে সহজ, আকর্ষণীয় এবং মনোরম করে তোলে। শিক্ষার্থীরা বই, সমাধান, নোট, সৃজনশীল দৃষ্টান্তের মতো একাডেমিক সংস্থান পাবে এবং বিনামূল্যে সেগুলি ডাউনলোড করতে পারবে।

ইন্টারেক্টিভ ভেঞ্চার্স লিমিটেডের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস হল রিয়েল টাইম যোগাযোগের মাধ্যমে গ্রাহকদের ই-লার্নিং, স্বাস্থ্য, মানসিক স্বাস্থ্য এবং আইনি পরিষেবার জন্য দেশের প্রথম ক্লাউড এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ভিত্তিক স্টার্টআপ। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে, লোকেরা সহজেই উল্লিখিত চারটি পরিষেবার জন্য বিশেষজ্ঞদের নিবন্ধন এবং অনুসন্ধান করতে পারে। তারা সরাসরি তাদের সাথে চ্যাট, ভয়েস কল এবং ভিডিও কল করতে পারে।

ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর বিভিন্ন ইউনিক পরিসেবার মধ্যে আছে ভার্চুয়াল হোয়াইটবোর্ড যা বাংলাদেশে প্রথম। আরও একটি পরিসেবা হলো গ্রাহকদের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কিত প্রশ্ন জিজ্ঞাসা প্ল্যাটফর্ম। ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর সকল কোর্সের মতো এই দুইটি সেবাও সবার জন্য উন্মুক্ত।

হোয়াইটবোর্ডের মাধ্যমে, ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর বিশেষজ্ঞরা অবস্থান এবং সময় নির্বিশেষে স্বতন্ত্র বা গোষ্ঠীলোকদের পরিষেবা দিতে পারেন। ভার্চুয়াল হোয়াইটবোর্ড ব্যবহারের মাধ্যমে, বিশেষজ্ঞরা সহজেই স্ক্রিনে হোয়াইটবোর্ড এ বিভিন্ন সেবার বৈশিষ্ট্যগুলি স্পর্শ করে এবং ব্যবহার করে ব্যবহারকারীদের জিনিসগুলি বুঝাতে পারেন। ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস ধীরে ধীরে এমন একটি গ্রহণযোগ্য এডটেক স্টার্টআপ হয়ে উঠেছে যা একজন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রি-রেকর্ডেড লেকচার এবং লাইভ ক্লাসের মাধ্যমে একটি অনন্য শিক্ষা প্রদান করে।

ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর বিভিন্ন কোর্সের মধ্যে আছে ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম,ক্যারিয়ার পাথ প্রোগ্রাম,হায়ার স্টাডি এর্বোড প্রোগ্রাম। এছাড়া বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো অটোক্যাড, জিআইএস সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবহার হয় এমন সফটওয়্যার এর উপর বিভিন্ন কোর্স চালু করেছে ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস। এছাড়াও আইএসএসবি প্রিপারেশন, ভর্তি প্রিপারেশন, কর্পোরেট লাইফ, জিআরই, আইএলটিএস সম্পর্কিত বিভিন্ন কোর্সও আছে ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর কোর্স তালিকায়।  

শিখো

শিখো

শিখো এডটেক স্টার্টআপ এর নতুন স্টার্টআপগুলির মধ্যে একটি যার লক্ষ্য নবম ও দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য একটি সামগ্রিক শেখার অভিজ্ঞতা সরবরাহ করা। শিখো ১ এপ্রিল, ২০১৯ তারিখে যাত্রা শুরু করে। শিখো এডটেক স্টার্টআপ শিক্ষা বিষয়ক তিনটি উপাদানের মধ্যে একটি সেতু হিসাবে কাজ করছে। বিষয় গুলো হলো একাডেমিক দক্ষতা, সৃজনশীল নকশা এবং প্রযুক্তি।

শিখো বর্তমানে মোবাইল ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করছে যা স্কুল ভিত্তিক বিভিন্ন বিষয় শেখার জন্যে বিভিন্ন সমাধান সরবরাহ করে। এটি অ্যানিমেটেড ভিডিও পাঠ, লাইভ ক্লাস, ইন-অ্যাপ প্রশ্ন এবং সমাধান এবং শেখার বিশ্লেষণ সরবরাহ করে। এটি ৬ থেকে ১২ তম শ্রেণী এবং জেএসসি, এসএসসি এবং এইচএসসির জন্য এর সমাধান সরবরাহ করে। এর মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসগুলির জন্য সহজলভ্য।

২০২০ সালের অক্টোবরে শিখো ‘শিখো-দ্য লার্নিং অ্যাপ’ চালু করে। ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা বিনিময় করতে শিখো শেখার প্রক্রিয়াটি গ্যামিফাই করেছে। অ্যাপটি চালু হওয়ার পর থেকে গ্রাহক এবং শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য আকর্ষণ পাচ্ছে। যদিও শিখোকে এখনও অনেক পথ যেতে হবে, তবে অবশ্যই বলা যেতে পারে যে শিখো ভবিষ্যতে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠবে এমন এডটেক স্টার্টআপগুলির মধ্যে একটি।

ওস্তাদ

ওস্তাদ

২০২০ সালে কুয়েট থেকে স্নাতক করা দুইজন শিক্ষার্থী ফাহিম সিদ্দিকী এবং সৌরভ বড়ুয়া দ্বারা চালু করা এডটেক স্টার্টআপ ওস্তাদ এর লক্ষ্য অনলাইন শিক্ষাকে সবার কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য করে প্রত্যেককে একজন  দক্ষ কর্মী হিসাবে তৈরি করা। এই তালিকায় প্রদর্শিত অন্যান্য এডটেক স্টার্টআপগুলির তুলনায়, ওস্তাদ রেকর্ড করা কোর্সগুলির পরিবর্তে লাইভ কোর্স সরবরাহ করে এবং শিক্ষার্থীরা ক্লাসচলাকালীন রিয়েল-টাইমে শিক্ষকদের সাথে মিথস্ক্রিয়া করতে পারে।

শেয়ারিং অর্থনীতির উত্থানে মুগ্ধ হয়ে, ওস্তাদের প্রতিষ্ঠাতারা দক্ষতা বৃদ্ধি নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন এবং এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন যেখানে লোকেরা তাদের দক্ষতা অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে ভাগ করে নিতে সক্ষম হবে এবং যেসব শিক্ষার্থীরা তাদের শিখতে চান এমন দক্ষতার জন্য টিউটর খুঁজে পেতে পারে। সংস্থাটি প্রাথমিকভাবে বেশ কয়েকটি অফলাইন প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম চালু করেছিল তবে শেষ পর্যন্ত ২০২০ সালের শুরুতে করোনাভাইরাস মহামারী আঘাত হানার সাথে সাথে অনলাইন শেখার দিকে চলে যায়।

ওস্তাদের প্রথম অনলাইন কোর্সটি ছিল আইইএলটিএস প্রস্তুতি বিষয়ক। ধীরে ধীরে, শিক্ষার্থী এবং প্রশিক্ষকের সংখ্যার সাথে, বিষয় এবং ওস্তাদের কোর্সের বিষয়বস্তুর সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে গত কয়েক মাস ধরে, ওস্তাদ তাদের শিক্ষার্থী তালিকায় দুর্দান্ত বৃদ্ধি দেখেছে এবং নতুন বৈশিষ্ট্য এবং কোর্স চালু করে চলেছে। 

বাংলাদেশের এডটেক স্টার্টআপগুলোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে সুবিধাবঞ্চিতদের শিক্ষার মূলধারার সাথে যুক্ত করা যাতে তাদের দক্ষতা উৎপাদনের সুযোগ প্রদান করা যায় এবং ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা ব্যবস্থায় বিদ্যমান ব্যবধান দূর করা যায়। বলা বাহুল্য, এটি বাংলাদেশে এডটেক স্টার্টআপের শুরু এবং সেই সমস্ত স্টার্টআপগুলিকে অনেক পথ যেতে হবে।

তবে আশার কথা হলো, বাংলাদেশে অনলাইন শিক্ষা ধীরে ধীরে গতি পাচ্ছে। ক্রমবর্ধমান সংখ্যক উদ্যোক্তা অনলাইনে শিক্ষা গ্রহণের জন্য প্রযুক্তি এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করতে চাইছেন। করোনাভাইরাস মহামারীর শুরু থেকেই এডটেক স্টার্টআপগুলি ব্যবহারকারী এবং বিনিয়োগকারী উভয়ের কাছ থেকে বর্ধিত মনোযোগ পাচ্ছে। অনলাইন শিক্ষা সম্পর্কে মানুষের ধারণায় পরিবর্তন এসেছে।

ইন্টারেক্টিভ কেয়ারস এর বিভিন্ন কোর্স সম্পর্কে জানতে এবং কোর্সে নিজেলে ইনরোল করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন এবং নিজেকে গড়ে তুলুন দক্ষ একজন কর্মী হিসাবে।

leave your comment