For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.
কেন আমরা পাইথন শিখবো?

কেন আমরা পাইথন শিখবো?

প্রোগ্রামিং এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ল্যাঙগুয়েজটি হলো পাইথন। অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষায় তুলনায় পাইথনের সিনট্যাক্স অনেক সহজ হওয়ায় এখন সারাবিশ্বের ডেভেলপারদের পছন্দের তালিকায় এক নম্বরে রয়েছে পাইথন । ডেভেলপারদের পাশাপাশি ডেটা সাইন্টিস্ট, সফটওয়্যার ইন্জিনিয়ার এবং হ্যাকারদের সবার পছন্দের তালিকায় রয়েছে পাইথন। চলুন জেনে নেই পাইথন প্রোগ্রামিং ল্যাঙগুয়েজটি কোন কোন জায়গায় ব্যবহার করা যায় –

১. ডেটা সাইন্স : ডেটা সাইন্স এর জন্য পাইথন খুব সহজে ব্যবহারযোগ্য একটি ল্যাঙগুয়েজ। কেননা পাইথন এর লাইব্রেরি ও ফ্রেমওয়ার্ক গুলি  ( Pybrain,Numpy etc) ডেটা সাইন্স ও আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স এ ব্যবহার করা সহজ ।

২. মেশিন লার্নিং : বিগত কয়েক বছর ধরে মেশিন লার্নিং ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর চর্চা পুরো পৃথিবী জুড়ে অনেক বেশি সমাদৃত । মেশিনকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রদানের জন্য যে ইন্সট্রাকশনগুলো দেয়া প্রয়োজন তা পাইথন ল্যাঙগুয়েজ দ্বারা খুব সহজেই প্রোগ্রাম করা যায়।

৩. ইমেজ প্রসেসিং : ইমেজ প্রসেসিং এর জন্য সবচেয়ে সহজে ইমপ্লিমেন্টেশন করার ল্যাঙগুয়েজ হলো পাইথন।  পাইথন এর  scikit-image,NumPy, SciPy,PIL/Pillow,OpenCV,Mahotas, pgmagick,Pycairo লাইব্রেরি গুলো হায়ার লেভেল ইমেজ প্রসেসিং এর জন্য  খুব সহজে ব্যবহারযোগ্য ।

৪.সিগন্যাল প্রসেসিং : যদিও ডিজিটাল সিগনাল প্রসেসিং এর জন্য MATLAB সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়, কিন্তু  পাইথন এর সিম্পল কিছু কোড  ব্যবহার করে খুব সহজে সিগনাল স্যাম্পলিং এর কাজগুলো করা যায়।

৫.ডিপ লার্নিং : Python এবং Keras library ব্যবহার করে ডিপ লার্নিং এর প্রজেক্ট গুলো খুব সহজেই করা যায় ।

৬.ওয়েব ডেভেলপমেন্ট : যদিও সারাবিশ্বে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর ফ্রন্ট এন্ডের জন্য HTML, CSS, Javascript  এবং ব্যাক এন্ডে Laravel ও Bootstrap সবচেয়ে বেশি প্রচলিত, কিন্তু পাইথনের Django ও Flask লাইব্রেরি ও ফ্রেমওয়ার্ক ব্যবহার করে ফ্রন্ট এন্ড ও ব্যাক এন্ড দুটোই খুব সহজে ডেভেলপ করা যায়৷ Instagram, Pinterest, Bitbucket, and Dropbox এর মত সফটওয়্যার গুলি পাইথনকে তাদের মেইন কোডিং ল্যাঙগুয়েজ হিসেবে ব্যবহার করে।

৭.এন্ড্রয়েড এপস ডেভেলপমেন্ট : এন্ড্রয়েড এপস ডেভেলপমেন্ট শুনলেই  আমাদের মাথায় প্রথম যে শব্দটি আসে তা হলো Java. কিন্তু বর্তমানে পাইথন দিয়ে খুব সহজেই এইকাজটি করা যায় । Android Studio এর নেটিভ ল্যাঙগুয়েজ হিসেবে পাইথন সাপোর্ট না করলেও বিভিন্ন টুলস ব্যবহার করে সহজেই পাইথন প্যাকেজকে আমরা এন্ড্রয়েড এর উপযোগী করে কনভার্ট করতে পারি।

৮.অটোমেশন : প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে অটোমেশন এর জন্য আমাদের চাহিদা আরো বাড়ছে। আর অটোমেশন ডিভাইস এর প্রোগ্রামিং এর জন্য সবচেয়ে সহজে ইমপ্লিমেন্টেশন করা যায় পাইথন ল্যাঙগুয়েজ দিয়ে।

৯.বিগ ডেটা ও IoT: বিগ ডেটা ও IoT বর্তমানের আইটি দুনিয়ায় সবচেয়ে বেশি আলোচিত একটি সেক্টর । এখানেও প্রোগ্রামিং এর প্রধান ল্যাঙগুয়েজ হলো পাইথন।

অর্থাৎ ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট হোক বা এন্ড্রয়েড এপস, মেশিন লার্নিং হোক বা রোবোটিকস,  Python এমন একটি প্রোগ্রামিং ভাষা যা সবক্ষেত্রে ব্যবহার যোগ্য। কিন্তু C#,Java বা অন্যান্য উচ্চস্তরের ভাষাগুলি এত বেশি versatile নয় । তার সাথে রয়েছে এর সহজ syntax, যা পাইথনকে করেছে অনেক বেশি beginner friendly । তাই পুরো বিশ্বে আজ এক নম্বর প্রোগ্রামিং ভাষার তালিকায় পাইথন নিজের অবস্থান দখল করে নিয়েছে ।
তবে পাইথন এর জনপ্রিয়তার সবচেয়ে বড় কারনটি হলো এটি Beginner’s Friendly language. তাই প্রোগ্রামিং ভাষায় পূর্বের অভিজ্ঞতা না থাকলেও খুব সহজেই পাইথন দিয়ে প্রোগ্রামিং এর হাতেখড়ি করে নিতে পারেন
তাই তরুণ প্রজন্মের যারা প্রোগ্রামিং ওয়ার্ল্ডে নিজের অবস্থান শক্ত করতে ইচ্ছুক, তাদের জন্য পাইথন শিখে ফেলা খুবই যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত ।

leave your comment