For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.
ডিজিটাল মার্কেটিং ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা-মার্কেটিং এর বদলে যাওয়া পৃথিবী

ডিজিটাল মার্কেটিং ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা-মার্কেটিং এর বদলে যাওয়া পৃথিবী

বর্তমান যুগ ইন্টারনেটের যুগ। এখন ঘরে বসে মানুষ বিশ্বের সব খবরাখবর রাখতে পারছে। বলা যায় পৃথিবী এখন হাতের মুঠোয়। আর এই ইন্টারনেটের অন্যতম একটি অবদান হলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। বর্তমানে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কিংবা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কথা সবার মুখে-মুখে। প্রযুক্তির এক বিস্ময় বলা চলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে, যা সামনের দিনগুলোতে আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হতে চলেছে।

বর্তমানে আমরা এমন একটি যুগে পৌঁছেছি যেখানে ডিজিটাল মার্কেটিং কথাটি ছাড়া কোনো সেবা বা পণ্য ক্রয় বিক্রয়ের কথা চিন্তা করা যায় না। ২০২১ হলো যোগাযোগের সেই উন্নত সময় যখন কারো কাছে পৌঁছে যাওয়াটা নিতান্তই সহজ এবং দ্রুত সেইসাথে স্পষ্ট‌ও। অর্থাৎ কোন ধরনের গ্রাহকদের জন্য কেমন সেবা কার্যকর তা বোঝার জন্য এখনকার চেয়ে ভালো সুযোগ আর ছিল না।

তাই যে ব্র্যান্ড কোম্পানিগুলো দ্বিমুখ যোগাযোগ ব্যবস্থা আয়ত্ত করে তাদের গ্রাহকের সাথে সংযুক্ত হয়েছে, তারাই কেবল ২০২১ এর এই তুমুল প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকতে পারছে। এই কাজটি সম্ভব হয়েছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য। আর ডিজিটাল মার্কেটিং এর পেছনে কাজ করছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।

উন্নত বিশ্বের দেশগুলো ইতোমধ্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে বিস্তর গবেষণা চালাচ্ছে। যানবাহন, খাদ্য প্রস্তুতকরণ কিংবা শিল্পে এটার ব্যবহার শুরু হয়ে গিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। প্রাথমিক পর্বটা পার হয়ে গেলেই ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ন্ত্রিত হবে পুরোপুরি কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার হাত দিয়ে। এর ফলে বহুদিন ধরে চলে আসা মার্কেটিংয়ের ধরনটাই বদলে যাবে। গ্রাহক সেবা বাড়ার পাশাপাশি পণ্যের প্রচারে যে খরচ সেটা অনেকটাই কমে যাবে।

Related: ইউটিউব মার্কেটিং কি এবং কিভাবে করবেন?

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কি?

Artificial Intelligence

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা মেশিন এবং কম্পিউটার বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয় যা জ্ঞান ভিত্তিক ফাংশন অনুকরণ করে যা মানুষ অন্যান্য মানুষের মনের সাথে যুক্ত করে, যেমন শেখা এবং সমস্যা সমাধান।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কম্পিউটার বিজ্ঞানের একটি আধুনিক ক্ষেত্র, যা মানুষের চিন্তা শক্তি ও বুদ্ধিমত্তাকে অনুকরণের মাধ্যমে কাজ করে। এজন্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা হলো মেশিন দ্বারা প্রদর্শিত বুদ্ধি। এই কৃত্রিম জ্ঞানের প্রক্রিয়াতে তথ্যের সংগ্রহ এবং তথ্য ব্যবহার, যুক্তি উপস্থাপন, আনুমানিক বা নির্দিষ্ট সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে নিয়মের ব্যবহার এবং স্ব-সংশোধন অন্তর্ভুক্ত।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার এর সাথে সম্পর্কিত কিছু ক্রিয়াকলাপ অত্যন্ত প্রযুক্তিগত এবং বিশেষায়িত, যেমন রোবোটিক্স, বক্তৃতা স্বীকৃতি, চিত্র স্বীকৃতি, প্রাকৃতিক ভাষা প্রক্রিয়াকরণ, সমস্যা সমাধান ইত্যাদি।বর্তমানের ইন্টারনেটের দুনিয়ায় বিস্তারিত অ্যালগরিদমের জন্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পর্কিত সিস্টেমগুলি এখন আরও বেশি পরিপক্ক হয়ে উঠছে, সিস্টেমগুলি আগের চেয়ে অনেক দ্রুত হারে আরও দক্ষ হয়ে উঠছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর প্রয়োগ ক্ষেত্র দিন দিন প্রসারিত হচ্ছে, যা বিশ্বজুড়ে গবেষণা ও উন্নয়ন ক্ষেত্রে বড় অগ্রগতি করতে সহায়তা করছে। এটা অনুমেয় যে ভবিষ্যতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা আনা প্রযুক্তিগত পণ্যগুলি মানুষের জ্ঞানের ধারক হবে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা মানুষের বুদ্ধিমত্তা নয়, তবে এটি মানুষের মতো ভাবতে পারে এবং মানুষের বুদ্ধিমত্তাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে।

Related: Artificial Intelligence Changing The World

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং ডিজিটাল মার্কেটিং

মার্কেটিংয়ের মূল কনসেপ্ট হলো প্রচারের মাধ্যমে পণ্যের বিক্রি বাড়ানো। এখানে গ্রাহকই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বড় বড় কোম্পানিগুলো প্রতি বছর তাদের আয়ের উল্লেখযোগ্য একটি অংশ ব্যয় করে তাদের পণ্যের প্রসারের জন্য। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাদের প্রচার ফলপ্রসূ হয় না ভুল গ্রাহকের কাছে ভুলভাবে প্রচারের জন্য। গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছানোর যে সীমাবদ্ধতা, এটা দূর করার ধারণা থেকেই মূলত ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অভিষেক।

বিগত বছরগুলিতে, বিপণনকারীরা তাদের বিপণন কৌশলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগ করতে দ্বিধাবোধ করত। কিন্তু এখন, অনেক সফল ব্র্যান্ড এটি গ্রহণ করেছে এবং তাদের বিপণন কৌশলের মধ্যে এটি ব্যবহার করেছে, অ্যামাজন এবং স্পটিফাই-এর মতো ব্র্যান্ডগুলি সফলভাবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা  ব্যবহার করেছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা হাজার-হাজার গ্রাহকের রুচির প্যাটার্ন অনুসারে তাদের কাছে সঠিক পণ্যের প্রচার করতে সক্ষম। যথেষ্ট পরিমাণ তথ্য মজুদ থাকার কারণে গ্রাহক পর্যায়ে সঠিক মাত্রার প্রচার যেমন সম্ভব হবে, তেমনি গ্রাহকের সন্তুষ্টি অর্জনেও সফল হবে এটি। ডিজিটাল মার্কেটিং এর অংশ হিসাবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এখন একটি বাস্তবতা যা বিভিন্ন সুবিধা এবং বিকল্প সরবরাহ করে।

উদাহরণস্বরূপ, অ্যামাজন এর কথা বলা যায়। অ্যামাজন পূর্ববর্তী অনুসন্ধান, ক্রয় এবং মতামতের উপর ভিত্তি করে ক্রেতাদের কেবল প্রাসঙ্গিক পণ্যগুলি দেখানোর জন্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার এই সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিতে পারে যে একজন ক্রেতা প্রাথমিক ক্রয় করবেন বা পুনরাবৃত্তি গ্রাহক হবেন যদি তার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা অত্যন্ত চাহিদাসম্পন্ন হয়।

কোম্পানিগুলো প্রচার এবং প্রসারের পেছনে যে ব্যয় করতো, সেটা কমে আসবে বহুগুণ। সময় বাঁচিয়ে তারা গ্রাহকের আরও কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারবে নির্দিষ্ট সেবা নিয়ে। সেবার মান বেড়ে যাওয়ার ফলে প্রতিষ্ঠানগুলোর মাঝেও প্রতিযোগীতা তৈরি হবে গ্রাহকসেবা নিশ্চিতকরণে। এতে মূলত উভয়পক্ষই লাভবান হবে বলে মনে করেন অনেক প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ।

Related: The Power of Social Proof in Digital Marketing & How to Use It?

ডিজিটাল মার্কেটিং বিপ্লবে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা

ডেটা সংগ্রহ, বিশ্লেষণ, এটি প্রয়োগ এবং তারপর এটি প্রতিক্রিয়া করার ক্ষমতা , কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার এই তিনটি ব্যবহার ডিজিটাল মার্কেটিং এ বিপ্লবের জন্ম দিয়েছে। সম্ভাব্য গ্রাহকদের তথ্যের পরিমাণ বাড়ার সাথে সাথে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দ্রুত এবং নির্ভুলভাবে ডেটা-ভিত্তিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতার কারণে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ভবিষ্যতে আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা অনুকূল করে ডিজিটাল বিপণনকারীদের জন্য গ্রাহক-মুখোমুখি পরিষেবাগুলিকে রূপান্তর করছে।

১. ডেটা শনাক্তকরণ এবং বিশ্লেষণ করণ

কাস্টমার রিলেশনশিপ ম্যানেজমেন্ট (সিআরএম) এমন একটি ব্যবসায়ের কৌশল বোঝায় যা গ্রাহকের তথ্য সর্বাধিকীকরণ এবং বৈধ তথ্য ফিল্টার করে ব্যবসায়ের প্রতি গ্রাহক কেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিষ্ঠিত করে।

সিআরএম, কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং বৃহৎ ডেটা প্রযুক্তি যখন একত্রিত হয়, তখন তারা বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম থেকে ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ সর্বাধিক করে তোলে, লক্ষ্যযুক্ত গ্রাহকদের জন্য সঠিক অন্তর্দৃষ্টি অর্জন করতে পারে এবং ব্যবহারকারীদের প্রয়োজনীয়তা সনাক্ত করতে পারে যাতে সংস্থাগুলি সর্বাধিক উপযুক্ত ডিজিটাল মার্কেটিং এর কৌশল নির্ধারণ করতে পারে।

মূল বিষয়টি হল যে কোনও আচরণগত তথ্য কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিশ্লেষণের উৎস হয়ে উঠবে। উদাহরণস্বরূপ, কেউ যে ধরণের পণ্য কিনে, তারা কোন পৃষ্ঠাগুলি ব্রাউজ করে, কোন সরঞ্জামগুলি প্রায়শই ব্যবহার করে ইত্যাদি। এই সমস্ত সংগৃহীত ডেটার সাথে, বিপণনকারীরা সহজেই কোনও সম্ভাব্য গ্রাহকের চাহিদা বিশ্লেষণ করতে এবং বিক্রয়কে বাড়ানোর জন্য ব্যবহৃত কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে অভিযোজিত করতে পারে।

কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে একটি কোম্পানী তার গ্রাহকের যাত্রা কল্পনা করতে পারে এবং সঠিক ধরণের সমাধান সরবরাহ করতে সক্ষম যা পরবর্তীতে গ্রাহকের কেনাকাটার অভিজ্ঞতা সহজ করে তোলে এবং গ্রাহককে তাদের অভ্যাসগুলি আরও ভালভাবে প্রতিফলিত করে এমন সুপারিশগুলির সাথে চেকআউটে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

২. কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটি/ভার্চুয়াল রিয়েলিটির সমন্বয়করণ

Atificial Intelligence with AR & VR

যখন কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা অগমেন্টেড রিয়েলিটি এবং ভার্চুয়াল রিয়েলিটির মতো নতুন ভিজ্যুয়াল প্রযুক্তিগুলির সাথে নিজেকে সমন্বয় করে, তখন এটি একটি গ্রাহক পর্যায়ে ব্যবহারের নতুন অভিজ্ঞতা নিয়ে আসে। এই পদ্ধতিটি গ্রাহকদের একটি ব্র্যান্ডের সাথে মিথস্ক্রিয়া এবং শেখার আকর্ষণীয় উপায় সরবরাহ করে, যা গ্রাহক এবং কোম্পানীর মধ্যে এক নতুন সংযোগ গঠন করতে দেয়।

অগমেন্টেড রিয়েলিটি/ভার্চুয়াল রিয়েলিটির সাথে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার সমন্বয় কেবল ব্যবহারকারীর ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে সতেজ করে না বরং একটি শক্তিশালী ব্র্যান্ড পরিচয় তৈরি করে যা একটি ব্র্যান্ডের গ্রাহক বেস থেকে আনুগত্যের মতো একটি বৃহত্তর অনুভূতি তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ, কোকা-কোলা তার বোতলজাত উদ্ভিদের মধ্যে চশমা বা হেডসেট ব্যবহার করে ব্যবহারকারীর বাস্তব-বিশ্বের দৃশ্যের উপর কম্পিউটার গ্রাফিক্স করে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটিকে একত্রিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটি প্রযুক্তিবিদদের পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে এমন সরঞ্জাম সম্পর্কে তথ্য পেতে এবং তাদের দৃষ্টিভঙ্গি দেখতে সক্ষম টেকনিশিয়ানদের কাছ থেকে সহায়তা করতে সক্ষম করে, যা দূরবর্তী অবস্থানের প্রযুক্তিবিদদের জন্য মেরামত ও সমস্যাগুলি নির্ণয় করা আরও সহজ করে তোলে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এ ব্যবহৃত কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা সরঞ্জাম

যদি কোনও সংস্থা কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের বিকল্পগুলি অন্বেষণ করতে শুরু করে এবং তাদের ওয়েবসাইটটি ব্যাপকভাবে পরিবর্তন করার জন্য ওয়েব ডেভেলপারদের একটি পূর্ণ দল নিয়োগ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে না চায় তবে তারা কাজটি সম্পন্ন করার জন্য কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা পরিচালিত হয় এমন কিছু সরঞ্জাম বেছে নিতে পারে।

মার্কেটিংপ্রোফদের মতে, ইতিমধ্যে যে সব ব্যবসা তাদের ব্যবসা সম্পর্কিত যেকোনো কাজে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার বাস্তবায়ন করেছে তারা ৫৯% ভালো ক্লোজ রেট, ৫৮% বর্ধিত রাজস্ব, ৫৪% বেশি ট্রাফিক এবং এনগেজমেন্ট এবং ৫২% বেশি রূপান্তর দেখতে পায়।

একটি সংস্থা তার মার্কেটিং কৌশলের মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রকে লক্ষ্য করার জন্য কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত বিভিন্ন সরঞ্জাম বেছে নিতে পারে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য সীমিত অর্থসংস্থান সহ সংস্থার যদি একটি ছোট ব্যবসা থাকে তবে সংস্থাটি এমন একটি কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত সরঞ্জাম বেছে নিবে যা তার বিজ্ঞাপন ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করবে।

যদি সংস্থাটি তাদের প্রতিযোগীদের চেয়ে এগিয়ে থাকতে পারে এমন একটি সমস্যার সমাধান খুঁজছে এমন একটি বড় সংস্থা হয় তবে তারা একটি এসইও (SEO) ভিত্তিক কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত সরঞ্জাম ব্যবহার করার কথা বিবেচনা করতে পারে যা সংস্থাটিকে তাদের প্রতিযোগীদের ছাড়িয়ে যেতে সহায়তা করবে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমতা চালিত কিছু সরঞ্জাম এর নাম এবং কাজ নিচে বর্ণনা করা হয়েছে,

১. গুগল ক্লাউড এআই (Google Cloud AI)

Google Cloud AI

যদি কোনও সংস্থা তাদের নিজস্ব চ্যাটবট বা প্রতিভা নেটওয়ার্ক তৈরি করতে চায় তবে গুগল ক্লাউড এআই ব্যবহার করাটা সবচেয়ে সহজ এবং নিরাপদ সমাধান। অনেক ডিজিটাল মার্কেটিং পেশাদারদের জন্য, এটি কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত একটি নিরাপদ এবং ক্লান্তিহীন সরঞ্জাম যা বড় আকারের কৃত্রিমভাবে বুদ্ধিমান পণ্য এবং পরিষেবাগুলির জন্য ব্যবহার করতে সুবিধা প্রদান করে।

এই ক্লাউড-ভিত্তিক প্ল্যাটফর্মে যেকোনো সংস্থার যে কেউ একটি প্রাক-প্রশিক্ষিত মডেল ব্যবহার করে অথবা সংস্থার নিজস্ব মডেল কাস্টমাইজ করে সহজেই সংস্থার নিজস্ব ওয়েবসাইটে সবকিছু একীভূত করতে পারবে।

২. মার্কেট ব্রিউ (Market Brew)

Market Brew

এসইও (SEO)  দলগুলির জন্য অন্যতম সেরা সরঞ্জাম, মার্কেট ব্রিউ এসইও পেশাদারদের অনুসন্ধান ইঞ্জিনগুলির পরিবর্তিত ল্যান্ডস্কেপ বুঝতে সহায়তা করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, অনুসন্ধান ইঞ্জিনগুলির পরিবর্তনগুলি কার্যকর হতে ৬০ দিন পর্যন্ত সময় নিতে পারে তবে মার্কেট ব্রিউয়ের নতুন ভবিষ্যদ্বাণীমূলক পরিষেবাগুলির সাথে একটি সংস্থা  ১.৫ ঘন্টার মধ্যে সংস্থার নিজস্ব র‌্যাঙ্কিং আপডেট করতে এবং পরিবর্তন করতে পারে।

৩. এমারসিস (Emarsys)

বি২সি-র ক্ষেত্রে ডিজিটাল বিপণনে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার ভবিষ্যৎ হল ব্যক্তিগতকরণ। ব্র্যান্ডগুলির জন্য ব্যবহারকারীরা যে ধরণের সামগ্রী দেখেন এবং তাদের সাথে মিথস্ক্রিয়া করেন তা ব্যক্তিগতকরণের ক্ষমতা হল প্রতিযোগিতায় ভরা বিশ্বব্যাপী ওয়েবের সবকিছু। এমারসিস একটি কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত অমনিচ্যানেল প্ল্যাটফর্ম যা ব্র্যান্ডগুলিকে স্কেলে ব্যক্তিগতকরণের সাথে সহায়তা করে। যদি কোনও সংস্থা তাদের ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা বাড়িয়ে তুলতে চায় এবং কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাথে বিক্রয় চালাতে চায়, তবে এটি তাদের জন্য একটি অত্যাবশকীয় সরঞ্জাম।

কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা এখন ব্যবসার জন্য আরও অ্যাক্সেসযোগ্য যা এটিকে ডিজিটাল মার্কেটিং জন্য একটি মূল্যবান সরঞ্জাম করে তোলে। এটি অকাট্য যে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা মূলত গ্রাহকদের পছন্দগুলিকে প্রভাবিত করে, প্রাসঙ্গিক সুপারিশ এবং সময়োপযোগী গ্রাহক পরিষেবা সরবরাহ করতে সহায়তা করে।

Related: How to Grow Your Business with Affiliate Program?

শেষকথা

আপনি কি জানেন যে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা অনেক সংস্থার ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার হয়ে উঠছে? বর্তমানে প্রায় প্রত্যেক সংস্থা তাদের প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল মার্কেটিং প্রফেশনালদের জন্য ৩-৪ টি জব ভ্যাকান্সি রাখতে ইচ্ছুক হয়ে উঠছে।

এই নিবন্ধে আমরা ব্যাখ্যা করেছি ডিজিটাল মার্কেটিং এ কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার কিভাবে আস্তে আস্তে পঞ্চম শিল্পায়নের এই বৈশ্বিক দুনিয়ায় প্রভাব বিস্তার করে যাচ্ছে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এখন যেভাবে পঞ্চম শিল্পায়নে বিপ্লব এনেছে এবং তাতে কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা কীভাবে প্রভাব বিস্তার করে সে সম্পর্কে আপনি যদি আরও জানতে চান, তাহলে শীঘ্রই আজ আমাদের ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সে নাম লেখান!

আমাদের একটি কোর্সের সাথে, আপনি কেবল আরও ভালভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং এবং কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পর্কে জানবেন না, বরং কৃ্ত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রতি মানুষের আচরণের ক্ষেত্রেও বিশেষজ্ঞ হবেন। আমরা আপনাকে এই কোর্সের আপনাকে এমন কিছু শিখাবো শিখাবো যা আপনাকে দেখাযবে যে লোকেরা কীভাবে চিন্তা করে এবং কেন তারা আপনার পণ্য বা পরিষেবাগুলির ক্ষেত্রে তারা যা করে থাকে তা করে।

আপনাদের জন্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় ব্যাপার হলো এই কোর্সে এনরোল করার ফটোশপ বা ইলাস্ট্রেটরের মতো ডিজাইন সরঞ্জামগুলির সাথে আপনার আগের কোনও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। শুধু ওয়াইফাই অ্যাক্সেস সঙ্গে একটি ল্যাপটপ সঙ্গে আনুন, ক্লাস সম্পর্কিত অ্যাসাইনমেন্টের জন্য কিছু সময়, এবং আপনার নতুন কিছু শেখার আগ্রহ!

পরবর্তী অধিবেশনের জন্য এখনও কয়েকটি আসন অবশিষ্ট রয়েছে, তাই সাইন আপ করার আগে খুব বেশি সময় অপেক্ষা করবেন না। আমরা আশা করি আপনি এই ব্লগ পোস্টটি পড়ে উপভোগ করেছেন এবং এটি থেকে নতুন কিছু শিখেছেন। 

যত দ্রুত সম্ভব কোর্সটিতে এনরোল হওয়ার জন্যে নিচের বাটনে ক্লিক করুন।

leave your comment