For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.
অ্যানালিটিক্যাল স্কিলঃ সমস্যা সমাধানের ৬টি পদ্ধতি

অ্যানালিটিক্যাল স্কিলঃ সমস্যা সমাধানের ৬টি পদ্ধতি

অ্যানালিটিক্যাল স্কিল বা সমস্যা সমাধান দক্ষতা মূলত কয়েকটি বিষয়কে একসাথে করে বিশ্লেষণ করে একটি সুস্পষ্ট ধারণা বা পরিবেশের সৃষ্টি করাকে বুঝায়। ব্যক্তি জিবনে মানুষের নানা সমস্যা দেখা দেয় কিছু আকষ্মিক আবার কিছু দৈনন্দিন। 

মাঝে মাঝে হয়ত ভাবেন সমস্যা না থাকলেই হয়ত ভালো হতো! কিন্তু একবার ভেবে দেখছেন জীবন কতটা বিষণ্ণ হতো।  তাই জীবনে যেকোন সমস্যাকে জটিল বা গুরুতর মনে না করে অস্থির না হয়ে ঠান্ডা মাথায় তা সমাধানে পথ খুঁজুন, দেখবেন জীবনটা কতটা গুরুত্বপূর্ণ। 

১.সমস্যা চিহ্নিতকরণ

যেকোন সমস্যা সৃষ্টির পিছনে অনেকগুলো ছোট ছোট সমস্যা থাকে। প্রবাদে বলা হয়-

“ছোট ছোট বালুকণা, বিন্দু বিন্দু জল,

গড়ে তোলে মহাদেশ, সাগর অতল”

অর্থাৎ, একটি সমস্যা কয়েকটি ক্ষুদ্র সমস্যার সমষ্টিস্বরূপ।  তাই যেকোন সমস্যা সমাধানে প্রাথমিক পর্যায় হলো সেই সমস্যাটি চিহ্নিত করণ করা। আপনি যদি বুঝতেই না পারেন আপনার প্রধান সমস্যাটি আসলেই কি তাহলে আপনার সমস্যা ধান হবে কি করে। যেকোন সমস্যার কেন্দ্রবিন্দু চিহ্নিত করুন সমস্যাটি মূলত কেন তৈরি হচ্ছে।  ধরুন আপনি একটি গ্রুপ ওয়ার্ক করছেন এখানে আপনার সকল চিহ্নিত করুন।

২.অন্যের উপদেশ গ্রহণ:

জীবনে এমন অনেক কিছুই ঘটে যা মাঝে মাঝে নিজের উপলব্ধি করার ক্ষমতা থাকে না। হয়ত আসেপাশের মানুষ তা সহজেই উপলব্ধি করতে পারছে। নিজের অজান্তে বা অবচেতন মনে সৃষ্ট নানা সমস্যা ব্যক্তি জীবনেও বিরূপ প্রভাব বিস্তার করে থাকে। তাই নিজের আশেপাশের মানুষের কাছ থেকে পরামর্শ নিন। আপনার আশেপাশে থাকা মানুষজনই আপনার সমস্যাটি বুঝতে পারবে এবং তার সঠিক সমাধানের পথনির্দেশ দান করতে পারবে। তাই সর্বক্ষেত্রে অন্যদের এড়িয়ে না গিয়ে উপদেশ গ্রহণ করতে পারেন এতে জীবনে ঘটে যাওয়া অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত বা অবচেতন সমস্যা সমাধান হবে।

৩.ইতিবাচক দৃষ্টি জ্ঞাপন করুন বা যুক্তিগত চিন্তা করুনঃ

যেকোন সমস্যাকে নেতিবাচকভাবে না দেখে ইতিবাচকভাবে দেখুন তাতে অর্ধেক সমস্যা সমাধান হয়ে যেতে পারে। পাশাপাশি তার যুক্তিগত চিন্তা করুন কেন এরূপ হতে পারে বা এর যৌক্তিক কারনটি কি অনুসন্ধান করুন। ইতিবাচক দৃষ্টিকোন বা যুক্তিযুক্ত চিন্তা যেকোন সমস্যা সমাধান করতে পারবে। চিন্তা ক্ষমতা কম ব্যক্তিরা জীবনে বেশিরভাগ সময়ই সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় আবেগ প্রবণ হয়ে পরে। যার দ্বরূণ জীবনে নানা সমস্যার মুখে পরে। তাই যুক্তিগত চিন্তা সমস্যা সমাধানের অন্যতম একটি পর্যায় বলা যায়।

৪.সম্পদের সুষম বন্টনঃ

সমস্যা বর্ধিত না করার অন্যতম উপায় হলো নিজের সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার করা বা সম্পদের সুষম বন্টন করা। ব্যক্তিভেদে এবং স্থানভেদে সম্পদের সংজ্ঞা একেকরকম হয়ে থাকে। যেমন কেউ সময়ের মূল্য দেন, কারও কাছে তথ্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, আবার কারো কাছে অর্থ।  সম্পদ যা-ই হোক সম্পদের সঠিক ব্যবস্থাপনা/ব্যবহার জানা থাকলে আপনার যেকোন সমস্যা সমাধান অনেক সহজ হয়ে যাবে। 

৫.বিশ্লেষণ বা গবেষণা করাঃ

reaserch

সমস্যা সমাধানের অন্যতম একটি ধাপ হলো সমস্যা চিহ্নিত করে তার সঠিক বিশ্লেষণ ও গবেষণা করা। আপনি বেশি বেশি বই পড়তে পারেন, ব্রইন গেমস খেলতে পারেন এবং প্রতিদিন কিছুনা কিছু শিখবেন এমন মন মানসিকতা তৈরি করুন। একটি পর্যায়ে দেখবেন আপনার সমস্যা বিশ্লেষণ ও গবেষণা করার ক্ষমতা দ্রুতাত পাবে এবং আপনার নেওয়া সিদ্ধান্তগুলো তেমনি নিখুঁত ও দীর্ঘমেয়াদী হচ্ছে।

৬.মনোবল দৃঢ় করাঃ

আমরা জীবনে বেশিরভাগ মানুষই যেকোন সমস্যার কথা শুনলেই মনোবল হারিয়ে ফেলি। জীবনে চলতে গেলে এমন হাজারো সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে আর তাই ভয় পেয়ে নিজেকে দূর্বল ভাবাটাও বোকামির কাজ। আপনি যদি বিপদে ভয় পেয়ে যান তাহলে আপনার সমস্যাটি আপনার নিকট অধিকতর জটিল মনে হবে। তাই ভয়, ভীতি, সংশয় না করে সমস্যা সমাধানের জন্য নিজেকে শক্ত রাখতে হবে। মনোবল দৃঢ় থাকলে জীবনে সমস্যা যেমন কম আসে তেমনি সমাধানও সহজেই করতে পারবেন।  আবেগে আপ্লুত হয়ে কোন সিদ্ধান্তঃ নেওয়া যাবে না। 

এমনি জীবনে ছোট ছোট সিদ্ধান্তন্তগুলো একসময় বড় প্রভাব ফেলে তাই জীবনে যেকোন ক্ষেত্রে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়ার পূর্বে চিন্তা করা জরুরি। আর এই জন্যই সবার উচিত অ্যানালিটিক্যাল স্কিল বাড়ানোর চেষ্টা করা যাতে জীবনে কোন সিদ্ধান্ত আবেগ তাড়িত  না হয়ে যুক্তিযুক্ত হয়।

Comments (2)


  1. বিল্ডিং ইনফরমেশন মডেলিং- কন্সট্রাকশন ডিজিটালাইজেশন এর নতুন দুনিয়া – Interactive Cares

    […] […]

  2. 5 Sports Which Boost Our Brain – Interactive Cares

    […] […]

leave your comment